1. admin@dailysunrisebangla.com : admin :
মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২২ অপরাহ্ন

স্কুল শিক্ষককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ৩১১ বার পঠিত

ঢাকার ধামরাইয়ে ধান চাষের প্রজেক্ট ও জমিজমার বিরোধকে কেন্দ্র করে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্কুল শিক্ষক মোঃ লুৎফর রহমান (৬১) পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে তারই আপন ছোট ভাই আলী আহম্মেদসহ একাধিক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্ত্রী আছিয়া বেগম বাদী হয়ে ৮ জনের নাম উল্লেখ্য করে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে জানাগেছে । গতকাল শনিবার(১৯ফ্রেরুয়ারী)সকাল ১১ ঘটিকার সময় ধামরাই উপজেলার ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের চন্দ্রাপাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

আহত স্কুল শিক্ষককের বাড়ী উপজেলার চন্দ্রাপাড়া গ্রামের মৃত তাজউদ্দিন আহম্মেদ এর ছেলে।তিনি চন্দ্রাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন। গেল ২০১৮ সালে বিদ্যালয় থেকে অবসরে যান। অভিযোক্তরা হলেন,মোঃ আলী আহম্মেদ পিতা মৃত তাজউদ্দিন আহম্মেদ,তার দুই ছেলে মোঃ ফারুক ও নাজমুল উভয় পিতা আলী আহম্মেদ, মোঃ আমিনুর রহমান পিতা আব্দুল আজিজ(কালু)।

ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, জমিজমা ধান চাষের প্রজেক্ট নিয়ে লুৎফর রহমান ও তার ছোট ভাই আলী আহম্মেদ এর মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত একটা বিরোধ চলে আসছিল। সেই বিরোধকে কেন্দ্র করে শনিবার সকাল ১১ ঘটিকার সময় পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে চাপাতি, ছ্যান,দা এবং লোহার রড নিয়ে বাড়ীর পশ্চিম পাশে সেচ পাম্প এর সাথে ইরি ধান জমিতে কাজ করার সময় আলী আহম্মেদ ও তার দুই ছেলে এবং ভাড়াটিয়া কিছু লোক নিয়ে আপন ভাই শিক্ষক লুৎফর রহমানের উপর হামলা চালিয়ে তার একটি হাতের আঙ্গুল কুপিয়ে ফেলে দেয় এবং লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে দুটি পা পঙ্গু করে হত্যার চেষ্টা করে।

এই সময় লুৎফর রহমানের ছোট ছেলে মাহাফুজ এগিয়ে আসলে তাদেরকে পিটিয়ে আহত করে। এই অবস্থা দেখে পাশের জমিতে পাওয়ার টিলার চালক মোঃ আসাদুর রহমান দৌড়িয়ে এসে ঘটনা স্থলে পৌছীয়ে দেখতে পাণ  স্কুল শিক্ষক ইরি জমিতে  কাদায় লুটিয়ে পরেছে।

আসাদুর রহমান তাদেরকে বলে লোকটা মরে যাবে তাড়াতারি হাসপাতলে নিয়ে চলেন। কিন্তু আলী আহম্মেদ ও তার ছেলেরা বলে মরতে দে। এরপর আসাদুর রহমান ডাক চিৎকারে শুনে পাশের এক রিকসাওলা দৌড়িয়ে এসে স্কুল শিক্ষক লুৎফর রহমানকে উদ্ধার করে ধামরাই সরকারী হাসপাতলে নিয়ে গেলে সেখানকার ডাক্তার তাকে ঢাকা হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদী হাসপাতলে পাঠান। কিন্তু পথিমধ্যে অবস্থার অবনতি হলে শিক্ষক লুৎফর রহমানকে এনাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।হাসপাতলে শুয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্ছা লড়ছে শিক্ষক লুৎফর রহমান। তার মাথায় ও হাতের মধ্যে দশটা সেলাই করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তব্যরত ডাক্তার। তবে বর্তমানে তাকে ধামরাই সরকারী হাসপাতলে গভীর পরিচর্যায় রাখা হয়েছে।  এই বিষয়ে লুৎফরের স্ত্রী আছিয়া বেগম বলেন, আলী আহম্মেদ আমার স্বামীকে মুত্যুর উদেশ্য পিটিয়ে কাদায় থেতলে দিয়ে ছিল।

আল্লাহ আসীম কৃপায় আমার স্বামী প্রাণে বেছে গেলেও শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে।আলী আমম্মেদ এর অনেক ক্ষমতা।আমি আইনের কাছে আমার স্বামীর নির্যাতনকারীর শাস্তি দাবি করছি।এছাড়া আলী বলেন তোদের মারলে সোয়াসের লবণের দাম মাত্র। সেই জন্য ওরা আমার স্বামীকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে।আমি মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এর সঠিক বিচার চাই। এবিষয়ে জানতে চাইলে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক(এসআই) মোঃ আব্দুল জলিল মন্ডল বলেন,ভাড়ারিয়া ইউনিয়নে চন্দ্রপাড়া গ্রামে ধান চাষের প্রজেক্ট ও জমির বিরোধকে কেন্দ্র করে এক স্কুল শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করার ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। অভিযোক্ত আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।  আসামীদের গ্রেফতার করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© স্বত্ব সংরক্ষিত ©২০২১ দৈনিক সানরাইজ বাংলা
Theme Customized BY Theme Park BD